বিভাগ - সারাদেশ

স্কুলের ছাদ থেকে পড়ে শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হওয়ায় শিক্ষকদের দায়িত্বে চরম অবহেলার অভিযোগ

প্রকাশিত

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি ঃ কলাপাড়ায় সরকারী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেনীর শিশু শিক্ষার্থী মো.আশরাফুল ইসলাম নূর ছাদ থেকে পড়ে গুরুতর আহত হওয়ার ঘটনায় এলাকায় অভিভাবকদের মধ্যে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। শিক্ষকদের দায়িত্বে চরম অবহেলার কারনে এ ঘটনা ঘটেছে বলে আহত শিশু শিক্ষার্থীর পরিবারের অভিযোগ।

জানা গেছে, ওই বিদ্যালয়ের বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার মহড়া দিতে বৃহস্পতিবার বিকেল তিনটার দিকে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে আসতে বলেন সংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা। শিক্ষার্থীরা যথারীতি শিক্ষকদের নির্দেশ মত বিদ্যালয়ে আসে। ওই বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় তলা থেকে পার্শ্ববর্তী ভবনের ছাদে অবস্থিত টাওয়ার কক্ষে যেতে একটি তক্তা দেয়াছিল, যা দিয়ে শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করতো। ঘটনার দিন তক্তা দিয়ে অতিক্রমের সময় আশরাফুল ইসলাম নূর নিচে পড়ে তার নাক এবং মুখমন্ডলে গুরুতর রক্তাক্ত জখম হয়। খবর পেয়ে স্কুল ক্যাম্পাসে অবস্থানরত এক শিক্ষক সুভাস চন্দ্র শীল নূরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্ের চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। পরে তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. অনুপ তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। নূর বর্তমানে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক, নাক-কান-গলা ও মাথা রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. এসএম মেসবাহ উদ্দীন আহ্মদ এর চিকিৎসাধীন আছে।

এদিকে এ ঘটনার তিনদিন অতিবাহিত হলেও শতশত অভিভাবকদের মধ্যে এ নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভ’র সৃষ্টি হয়েছে। তাদের দাবী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ওদের যে শিক্ষক দায়িত্বে ছিলেন তিনি ঘটনাস্থলে ছিলেন না বিধায় তার কর্তব্যে অবহেলার কারনে এমন ঘটনা ঘটেছে।

এব্যাপারে বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবদুর রহিম জানান, বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে শিক্ষকদের ভাগ করে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তবে কে কোন দায়িত্বে ছিলেন তা তিনি বলতে পারছেন না। তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছেন, এলাকায় ফিরে বলতে পারবেন বলে তিনি উল্লেখ করেন।খেপুপাড়া সরকারী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়েরর সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান জানান, ঘটনাটি মর্মান্তিক, দায় এড়ানোর কোন সুযোগ নেই বলে উল্লেখ করেন তিনি।