স্বাধীনতায় ভারত ও ইন্দিরা গান্ধীর অবদান অনস্বীকার্য : নিম চন্দ্র ভৌমিক

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: বাংলাদেশের স্বাধীনতায় প্রতিবেশী ভারত ও তৎকালীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর অবদান অনস্বীকার্য বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক রাষ্ট্রদূত অধ্যাপক নিম চন্দ্র ভৌমিক। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের ৬ ডিসম্বর বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দেয়া মধ্য দিয়ে সারা পৃথিবীতে তিনি স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার চূড়ান্ত বিজয় ঘোষণা করেছিলেন।

শুক্রবার (৬ ডিসেম্বর) তোপখানার নির্মল সেন মিলনায়তনে বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু, ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ৩রা ডিসেম্বর ভুটান, ৪ ডিসেম্বর নেপাল ও ৬ ডিসেম্বর ভারতের স্বীকৃতি প্রদানের ৪৮তম দিবস পালন উপলক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ঘোষণা পক্ষাবলম্বন করে পুর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমেদের নেতৃত্বকে সমর্থন দেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, প্রবাসী মুজিবনগর সরকারকে সমর্থন দেন এবং পরবর্তীতে বিশ্ব জনমত গঠন করে তার নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর ভুটান, ৪ ডিসেম্বর নেপাল ও ৬ ডিসেম্বর ভারত স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়ে মুক্তিবাহিনীর সাথে এক হয়ে পাকহানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয় হয়।

তিনি বলেন, এই বিজয়কে ধারণ করে আজ বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা, শেরে বাংলা, সোহরাওয়ার্দী, মওলানা ভাসানী ও তাজউদ্দিন আহমেদের আকাঙ্খিত বাংলাদেশ গড়ার জন্য সন্ত্রাস, দুর্নীতি, ঘুষ, চাঁদাবাজি, মাদকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে শুদ্ধি অভিযান চালাচ্ছেন।

জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগের সংগঠনের সভাপতি এম এ জলিলের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ গ্রহন করেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভূইয়া, বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের সভাপতি লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল, এনডিপির মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ নেতা আ.স.ম মোস্তফা কামাল, বাংলাদেশ জাসদ নেতা হুমায়ুন কবির, জাতীয় স্বাধীনতা পার্টির চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু, বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের সাধারণ সম্পাদক রোকন উদ্দিন পাঠান, বাংলাদেশ উন্নয়ন পার্টির চেয়ারম্যান শরিফুর রহমান, সংগঠনের সহ সভাপতি জাহানারা বেগম, সাধারণ সম্পাদক সমীর রঞ্জন দাস, দপ্তর সম্পাদক কামাল হোসেন প্রমুখ।