৭০ বছরের ভয়াবহতম বন্যার কবলে চীন, বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে লাখ লাখ মানুষ

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ ডেস্ক:কয়েকদিনের টানা ভারী বর্ষণে চীনের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। এই বন্যাকে বিগত ৭০ বছরের মধ্যে ভয়াবহতম বলে বর্ণনা করেছে দেশটির গণমাধ্যমগুলো। ইতোমধ্যে প্রায় দেড়শ’ মানুষ বন্যা-ভূমিধসে মারা গেছেন বলে বিভিন্ন গণমাধ্যম জানিয়েছে। তিনটি প্রদেশের হাজার হাজার ঘরবাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। প্রাণ বাঁচাতে লাখ লাখ মানুষ উঁচু বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছে।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানায়, গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণের ফলে সৃষ্ট বন্যায় হুবেই, জিয়াংজি এবং ঝেঝিয়াং প্রদেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চল কার্যত বন্যার পানিতে ভাসছে। ঘরবাড়ি পানিতে তলিতে যাওয়ায় উঁচু বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছে লাখ লাখ মানুষ। কিন্তু পানির চাপে বাঁধগুলোতেও দেখা দিয়েছে ফাটল।বাঁধ ভেঙে পড়ার শঙ্কায় আশ্রয় নেয়া লোকজন পালা করে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে।

খবরে জানানো হয়, গত ৭০ বছরের মধ্যে চীন সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে। চলতি বছরের জুন মাস থেকেই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলজুড়ে ব্যাপক হারে বৃষ্টিপাত হচ্ছে। আর বর্ষা মৌসুমের শুরুতেই নতুন করে ভারী বর্ষণ শুরু হওয়ায় একাধিক নদীর পানি উপচে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

বর্ষণের ফলে কোথাও কোথাও ভূমিধসের ঘটনা ঘটছে। নদীর তীরের লাখ লাখ মানুষকে নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

এখন পর্যন্ত বন্যায় প্রায় ৩ কোটি ৪০ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যা-ভূমিধসে প্রায় ১৪০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। নিখোঁজ আছেন বহু মানুষ।

দেশটির জিয়াংজি প্রদেশে নদী তীরবর্তী বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে এই অঞ্চলের কয়েক লাখ অধিবাসী। কিন্তু নদীর পানির চাপে বাঁধগুলোতেও ফাটল দেখা দেয়ায় তা ভেঙে পড়ার আশঙ্কায় দিন কাটাচ্ছেন তারা।

টানা বর্ষণে গতকাল ১২ জুলাই, রবিবার ইয়াংসিকিয়াং নদীর পানি উপচিয়ে লেকের পানি এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ ২২.৫ মিটার পর্যন্ত পৌঁছেছে। এর ফলে শানগ্রাও অঞ্চলের বহু ছোট-বড় শহর ও গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।