৮ উপজেলার ৮’শতাধিক দুস্থ পরিবারকে চট্টগ্রাম দ.জেলা ছাত্রলীগের ত্রাণ বিতরণ

প্রকাশিত

জে.জাহেদ, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি থাকায় সবচেয়ে বিপাকে রয়েছে নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী মানুষেরা। কাজ না থাকায় খাবারের সংকটে রয়েছেন তারা। এমন প্রেক্ষাপটে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তাহের এর ব্যবস্থাপনায় দক্ষিণাঞ্চলের আটটি উপজেলার দুস্থ ও অবহেলিত মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ।

এসব উপজেলা সমূহ হলো: আনোয়ারা, বাঁশখালী, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, পটিয়া, চন্দনাইশ, বোয়ালখালী ও কর্ণফুলী। এসব উপজেলায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তাহের এর উপস্থিতিতে এসব ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়। করোনা সংকটময় পরিস্থিতির শিকার কর্মহীন, গৃহবন্দী, দুঃস্থ ও নিম্ন আয়ের ৮’শতাধিক পরিবারের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী (চাউল, ডাল, আলু, পেঁয়াজ, তেল ও সাবান ইত্যাদি) বিতরণ করা হয়।

পাশাপাশি গত কয়েক সপ্তাহ ধরে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ মানবতার বিষয়টি মাথায় রেখে সাধারণ মানুষকে মাস্ক, হ্যান্ড গ্ল্যাভস ও স্যানিটাইজার, লিফলেট বিতরণ-সহ বিভিন্ন জনসচেতনামূলক কর্মসূচি চালিয়েছেন। এরই অংশ হিসেবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আট উপজেলার অবহেলিত দুস্থ মানুষকে দুদিন ব্যাপী ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে করোনা প্রতিরোধে মানুষের ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তাহের এর নেতৃত্বে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সকল সদস্য প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন।

গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে মো. আবু তাহের বলেন, ‘দেশের সকল দুর্যোগকালীন সময়ে ছাত্রলীগ তার ভূমিকা রেখেছে। করোনা সংকটের শুরু থেকেই আমরা চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ মাঠে আছি। শুরুতে ১৫ হাজার লিফলেট বিতরণ করে একেবারে তৃণমূল পর্যায়ের প্রান্তিক মানুষদের সচেতন করার চেষ্টা করেছিলাম। পরবর্তীতে চট্টগ্রাম কলেজের রসায়ন বিভাগের সহযোগিতায় নিজেদের অর্থায়নে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করে বিনামূল্যে বিতরণ করি। তাছাড়া আমরা প্রচুর মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস ও হ্যান্ড ক্লিনার এ্যালকোহল প্যাড বিনামূল্যে মানুষের মাঝে বিতরণ করেছি।’

তিনি বলেন, ‘যেহেুতু দেশের যেকোন ক্রান্তিলগ্নে ছাত্রলীগ সর্বাগ্রে ছুটে আসে এবং আর্তমানবতায় মানুষের পাশে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় আমরা চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ ক্ষুদ্র সামর্থ্য অনুযায়ী সর্বোচ্চ আন্তরিকতা দিয়ে এই দূর্যোগে দেশ ও জাতির প্রতি আমাদের দায়িত্বশীলতা ও দায়বদ্ধতাকে মাথায় রেখে নিজেদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা দিয়ে আর্তমানবতায় পাশে থাকার চেষ্টা করেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেই ছাত্রলীগ এভাবেই গণমানুষের পাশে দাঁড়াবে। দেশের মানুষকে সচেতন করতে তাদের এ কার্যক্রম আগামীতেও অব্যাহত থাকবে জানান।’

এ সময় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জেলা, উপজেলা, কলেজ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত থেকে বিভিন্নভাবে সাহয্য সহযোগিতা করায় তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ জানিয়েছেন মো. আবু তাহের।

প্রসঙ্গত, বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহানে প্রথম শনাক্ত হয়। সারা বিশ্বে প্রায় পৌনে আট লাখেরও বেশি মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মারা গেছেন প্রায় অর্ধলাখ। আর চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন প্রায় দুই লক্ষ মানুষ। বাংলাদেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫৬ জন। মারা গেছেন ৬ জন।

উল্লেখ্য যে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সারাদেশে ছাত্রলীগের সকল ইউনিটকে জনসমাগম এড়িয়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে মেডিকেল টিমের সমন্বয়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি, মাস্ক বিতরণ ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে লিফলেট বিলি করার নির্দেশ দেন।

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় দেশে গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি অফিসে টানা ১০ দিনের ছুটি চলছে। তবে পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় ৪ এপ্রিলের সঙ্গে ৫ দিন সাধারণ ছুটি এবং ২ দিন সাপ্তাহিক ছুটিসহ আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সব ধরনের অফিস-আদালত বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার।