ফটো গ্যালারি

ডি ভিলিয়ার্সের যে মন্ত্রে বিশ্বকাপ শিরোপা মরগানের হাতে

ডি ভিলিয়ার্সের যে মন্ত্রে বিশ্বকাপ শিরোপা মরগানের হাতে \

স্পোর্টস ডেস্ক: অবশেষে ক্রিকেটের আতুরঘর ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপের বন্ধ্যাত্ব ঘুচল। ইয়ন মরগানের অনন্য নেতৃত্বে আরাধ্য শিরোপা ঘরে তুলল ইংল্যান্ড। লর্ডসে সেদিন গোটা বিশ্ব দেখেছে তাকে শিরোপা উঁচিয়ে ধরতে। তবে পর্দার অন্তরালে ঘটেছে অন্য ঘটনা। মরগানকে বিশ্বকাপ জয়ের মন্ত্র নাকি দিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার তারকা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্স।

কিন্তু কিভাবে? চলুন শুনি সেই গল্প। বিশ্বকাপ শুরুর আগে বিশ্বমঞ্চে মরগানকে ‘অধিনায়কত্ব ও তার চাপ সম্পর্কে সতর্ক’ করেন ডি ভিলিয়ার্স। ইংলিশ অধিনায়ককে নিয়ে স্মৃতিচারণও করেন তিনি। ৩৬০ ডিগ্রিখ্যাত ব্যাটসম্যান বলেন, আমরা অনেক অভিজ্ঞতা ও স্মৃতি ভাগাভাগি করেছিলাম। মরগান এসব থেকে কিছু একটা গ্রহণ করেছে।

২২ গজে ১৫ বছর দাপটের সঙ্গে খেলে গেল বছরের মাঝামাঝিতে ঘটা করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেন এবি। ফলে ২০১৯ বিশ্বকাপ খেলা হয়নি এই কিংবদন্তীর। সেখানে মরগান শুধু খেলেননি, ইংল্যান্ডকে জিতিয়েছেন ঐতিহাসিক শিরোপা।গেল নভেম্বরে দক্ষিণ আফ্রিকা টি-টোয়েন্টি লিগে খেলতে যান মরগান। সোয়ান স্পার্টান্স ক্লাবের হয়ে মাঠ মাতান তিনি। সেসময় ডি ভিলিয়ার্সকে সতীর্থ হিসেবে পান ইংরেজ কাপ্তান।

দক্ষিণ আফ্রিকায় এসে প্রথমে হোটেলে ওঠেন মরগান। কিন্তু কয়েকদিন পরই সিদ্ধান্ত নেন ডি ভিলিয়ার্সের সঙ্গে সময় কাটানোর। সাবেক প্রোটিয়া অধিনায়কও না করেননি। তাকে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান তিনি। সেখানেই জমে ওঠে দু’জনের বন্ধুত্ব। রেড ওয়াইন হাতে তারা কয়েক রাত কাটান ক্রিকেট নিয়ে আলোচনা করে। ক্রিকেটের বাইরে অবসরে উভয়ই সময় কাটান গলফ মাঠে। পারস্পরিকভাবে কাছে থাকায় মরগানের সঙ্গে নিজের অধিনায়কত্বের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন ডি ভিলিয়ার্স।

স্পোর্টস মেইলকে সাবেক প্রোটিয়া অধিনায়ক বলেন, অধিনায়ত্ব ও নের্তৃত্বের সময় কি চাপ আসতে পারে তা নিয়ে আমরা অল্প-স্বল্প কথা বলতাম। ওই সময় মরগান সারাক্ষণ টেলিফোনের সামনে থাকত। ইংল্যান্ড নির্বাচকদের সঙ্গে কথা বলত। এ নিয়ে একটু মজাও করেছেন এবি। তিনি বলেন, ওই দিনগুলোতে সে পার্টনার হিসেবে ভালো ছিল না।

এর আট মাস পর দল নিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করে মরগান। শেষ পর্যন্ত প্রথমবার ওয়ানডে বিশ্বকাপ জিতিয়ে দেশকে ভাসিয়েছেন উৎসবের সাগরে। স্বভাবতই কৃতিত্ব নিতে ছাড়েননি ডি ভিলিয়ার্স। হাসিমুখে তিনি দাবি করেন, আমি ১০০ শতাংশ দাবি করছি,মরগানের বিশ্বকাপ জয়ে আমারও অবদান আছে।

মন্তব্য করুন

আরো সংবাদ