ফটো গ্যালারি

রাজারহাটে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, অগ্নি সংযোগ ও সড়ক অবরোধ

রাজারহাটে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, অগ্নি সংযোগ ও সড়ক অবরোধ \

অনিরুদ্ধ রেজা,কুড়িগ্রাম: রাজারহাটের নাজিমখাঁন স্কুল এ্যান্ড কলেজে দীর্ঘদিন ধরে নিয়মিত পাঠদান না হওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে অবরুদ্ধ সহ অগ্নিসংযোগ,সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ করেছে। এতে করে রাজারহাট-উলিপুর সড়কে প্রায় তিন ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে। পরে এক মাসের মধ্যে পদত্যাগের মুচলেকা দিয়ে অবমুক্ত হয়েছেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ।

সরেজমিনে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান,শনিবার সকালে নাজিমখাঁন স্কুল এ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অপসারন ও নিয়মিত পাঠদান নিশ্চিত করনের দাবীতে প্রতিষ্ঠানের সামনে রাজারহাট-উলিপুর সড়কে বিদ্যালয়ের ব্রেঞ্চ জড়ো করে অগ্নি সংযোগ ও সড়ক অবরোধ ও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে শিক্ষক রুমে অবরুদ্ধ করে রাখে। দুপুরে খবর পেয়ে রাজারহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রথমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে ব্যর্থ হলেও পরে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহ,রাশেদুল হক প্রধান ও থানা অফিসার ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার সরকার এসে শিক্ষার্থীদের দাবী পূরনের আশ্বাস প্রদান করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

শিক্ষার্থী অভিভাবক শহীদুল ইসলাম,এরশাদুল হক বিল্পব,আঃ মোতালেক,মিজানুর রহমান সহ অভিযোগ করেন,প্রায় সাত বছর পূর্বে প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ অবসরে যাওয়ার পর মাত্র ৬মাসের জন্য কলেজ শাখার প্রভাষক মোস্তাফিজুর রহমান বিজুকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। দায়িত্ব প্রাপ্তির পর থেকে তিনি পূর্ণাঙ্গ অধ্যক্ষ নিয়োগের উদ্যোগ গ্রহন না করে ও টালবাহনা করে প্রায় ৭ বছর কাটান। তিনি দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে প্রতিষ্ঠাটির শিক্ষার মান নি¤œগামী হতে থাকে। নামকাওয়াস্তে দু-একটি ক্লাশের বেশি এই প্রতিষ্ঠানটিতে কোন ক্লাশ হয় না। প্রায় সাত বছর ধরে চলে আসা সমস্যা নিরসনের দাবীতে শিক্ষার্থী আন্দোলন করছে। আমরা এর স্থায়ী সমাধান চাই।

বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী জেতি,আদিলা ও সাথি অভিযোগ করেন,ক্লাশ হয় না বললেই চলে,দু-একটি হলেও বিজ্ঞান শাখার ক্লাশ কখনো হয় না। বাধ্য হয়ে অযোগ্য ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অধ্যক্ষের অপসারনের দাবীতে আমরা আন্দোলনে নেমেছি। দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সেলি বেগম,ইভা,সোহাগ,ফারুক,অপি সহ অনেকেই একই দাবী জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিদ্যালয় শাখার একাধিক শিক্ষক জানান,বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান শাখার ২জন শিক্ষক অবসরে যাওয়ার পর থেকে শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান,রষায়ন,পদার্থ ও উচ্চতর গণিত ক্লাশ প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। কলেজ শাখায় বিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষক নুরআলম বসুনীয়া ও মনিবুল নামের দু’জন থাকা সত্বেও তারা স্কুল শাখায় ক্লাশ না নিয়ে পার্শ্ববতী উলিপুর উপজেলার স্কান কোচিং সেন্টারের শিক্ষকতা এবং বাইরের প্রাইভেট নিয়ে ব্যস্ত থাকছেন। একই অভিযোগ শিক্ষার্থীদের ।

এদিকে শনিবার বিকেলে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের দাবীর মুখে,উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা ও থানা অফিসার ইনচার্জ শিক্ষক রুমে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির সদস্য এবং শিক্ষকদের নিয়ে জরুরী বৈঠকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান বিজু এক মাসের মধ্যে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের পদ থেকে পদত্যাগের লিখিত প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন। এছাড়া রবিবার সহকারী শিক্ষক আইয়ুব আলীর তত্বাবধায়নে নিয়মিত পাঠদানের নিশ্চিয়তা প্রদানের পর শিক্ষার্থীরা আন্দোলন প্রতাহার করেন।

এবিষয়ে নাজিমখাঁন স্কুল এ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান বিজু জানান,একটি মহল পরিকল্পিত ভাবে আমাকে উক্ত পদ সরানোর জন্য এসব করছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাশেদুল হক প্রধান ও থানা অফিসার ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মন্তব্য করুন

আরো সংবাদ