ফটো গ্যালারি

কলাপাড়ায় পানি ও বিদ্যুতের চরম বিপর্যয় ভোগান্তিতে এলাকাবাসী

কলাপাড়ায় পানি ও বিদ্যুতের চরম বিপর্যয় ভোগান্তিতে এলাকাবাসী \

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি: কলাপাড়ায় পল্লী বিদ্যুতের প্রতিনিয়মিত লোডশেডিং ও পৌরসভার পানি সরবরাহে অনিয়ম যেন এখন নিয়মে পরিনত হয়েছে। বিদু্যুৎ ও পানি নিয়ে সংশ্লিষ্ট রাঘব-বোয়ালরা ৪২ হাজার পল্লী বিদ্যুৎ গ্রাহক ও ২৭৮১ পানি গ্রাহককে প্রতিদিনই চরনম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। বিদ্যুৎ-পানি নিয়ে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী তাদের প্রতিদিনের ভোগান্তি লাঘবে যথাযথ কতৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

শুক্রবার সকাল থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত বিদ্যুত হীন ছিল কলাপাড়া। বিদ্যুৎ বিভাগের দাবী শাখারিয়া থেকে লাইন খারাপ ছিল। বৃহস্পতিবার পুরনো খূঁটি বদলানো হয়েছে, লাইনও খারাপ ছিল। এর আগের দিন বুধবার বরিশাল থেকে পটুয়াখালী লাইন খারাপ ছিল। এর আগের দিন মঙ্গলবার পটুয়াখালী কলাপাড়া লাইন খারাপ ছিল। এভাবে টানা অন্তত: সাতটি দিন গড়ে পাঁচ-ছয় ঘন্টা বিদ্যুত বন্ধ ছিল। এছাড়াও নানান অজুহাতে বছরের প্রতিদিন ৬/৭ বারে পাঁচ থেকে ছয় ঘন্টা বিদ্যুত সররাহ বন্ধ থাকছে। শনিবার দিনে রাতে কতবার যে আসা যাওয়া করেছে হিসেব নেই। রাত ১১টার দিকে যেয়ে বিদ্যুৎ পাওয়া গেল রাত ৩টার দিকে। এভাবে বিদ্যুৎ নিয়ে ৪২ হাজার গ্রাহকের সাথে পল্লী বিদ্যুতের প্রতিদিনের তামাশায় গ্রাহকদের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। কেননা বিদ্যুৎ বিভাগের প্রতিদিন কোন না কোন সমস্যার অজুহাত লেগেই আছে। আর আকাশে মেঘ কিংবা একটি বৃষ্টিসহ বাতাস বইলে তো কথাই নেই। বিদ্যুত উধাও। এতে গ্রাহকরা এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

অপরদিকে প্রতি ২৪ ঘন্টায় পৌরবাসীর পানি চাহিদা রয়েছে ১৫০০ মিটার কিউব বা ১৫ লক্ষ লিটার। কিন্তু ১টি ওভার হেড ট্যাংকে পানি উত্তোলন সক্ষমতা রয়েছে মাত্র ৫০০ মিটার কিউব বা ৫ লক্ষ লিটার। বিদ্যুতের অনুপস্থিতিতে বিকল জেনারেটর দিয়ে পানি উত্তোলন সম্ভব না হলেও পানি লাইনের সংযোগ রয়েছে ২৭৮১টি। ফলে বিদ্যুৎ না থাকলে পানিও থাকছেনা পানি সরবরাহ লাইনে। এতে পানি সংকটে প্রতিদিন অতিষ্ঠ হয়ে উঠছে পৌরবাসী।

এদিকে কলাপাড়ার মানুষের প্রতিদিনের এ নাগরিক দূর্ভোগ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক এখন সরব হয়ে উঠেছে। শনিবার রাত ১১:৫০ এ বিদ্যুৎ চলে গেলে রাত ২:৪০ আসলো। রাতে কোন ঝড় হয়নি। কানিজ ফাতেমা নামের এক নারী সহ অনেক নাগরিকরা এনিয়ে তাদের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ফেসবুকে। তবে পৌর মেয়র বিপুল চন্দ্র হাওলাদার পানির পাম্পের সূচ অন করছেন এমন ছবি ফেসবুকে। সমস্যার সমাধান হচ্ছে না।

পল্লী বিদ্যুত সমিতি কলাপাড়ার ডিজিএম প্রকৌশলী শহীদুল ইসলাম জানান, বর্তমানে লাইনের আপগ্রেডেশনের কাজ চলছে। তার ওপরে বৃষ্টি-বাদলের কারনেও বিদ্যুত সরবরাহে বিঘœ ঘটছে। এমাস পরে বিদ্যুত সরবরাহের অনেকটা উন্নতি হবে বলে এ কর্মকর্তা জানান।

কলাপাড়া পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মো: মিজানুজ্জামান জানান, ’পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা রাজস্ব খাত থেকে তাদের সকল সুবিধা পাওয়ার দাবীতে ঢাকায় আন্দোলনে থাকায় নাগরিক সেবায় কিছুটা বিঘœ ঘটছে। এছাড়া নতুন একটি ওভার হেড ট্যাংক পানি সরবরাহে যুক্ত হওয়ার পর থেকে পানি সেবা নিয়ে কোন সমস্যা থাকবে না।

মন্তব্য করুন

আরো সংবাদ