ফটো গ্যালারি

ক্রিকেট ছাড়াই চার বছরে স্মিথের আয় ১০২২ কোটি

ক্রিকেট ছাড়াই চার বছরে স্মিথের আয় ১০২২ কোটি \

স্পোর্টস ডেস্ক: আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের পর থেকেই অসাধারণ পারফর্ম করে যাচ্ছেন স্টিভ স্মিথ। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে তিন নম্বর পজিশনে নিয়মিত ব্যাটিং করে যাচ্ছেন সাবেক এ অধিনায়ক।

২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে আর আগস্টে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক হয় স্মিথের। অভিষেকের পর থেকেই নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিয়ে যাচ্ছেন তিনি। বর্তমান সময়ে বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান স্মিথ। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তি ক্রিকেটার শেন ওয়ার্নের সঙ্গে স্মিথকে তুলনা করেছিলেন অনেকে। লেগ স্পিনার হিসেবে খেলার সময় স্মিথ ৮ নম্বর পজিশনে ব্যাটিং করতেন।

২০১৩ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজে স্মিথের ক্যারিয়ারের বাক বদল হয়। সেই সিরিজে নিজেকে একজন ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন তিনি। স্মিথ অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ইতিমধ্যে তিন ফরম্যাটে ২১৩ ম্যাচ খেলে ৩৩টি সেঞ্চুরিতে ১০ হাজার ৭২৬ রান করেছেন। টেস্ট ক্রিকেটে অন্তত ৫০ ইনিংস খেলা ক্রিকেটারদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যাটিং গড়ের মালিক এই অজি তারকা। তেমনি তার আয়ের হারও বেড়েছে তরতর করে!

এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান অস্ট্রেলিয়ার ম্যাট্রেস প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান ‘কোয়ালা’র শেয়ার কিনেছিলেন। ২০১৫ সালের জুলাই মাসে এই প্রতিষ্ঠানের মোট অংশের ১০ শতাংশ কিনেছিলেন স্মিথ, ১ লাখ ডলারে। তখন প্রতিষ্ঠানটিও ছিল অখ্যাত। শেয়ার কেনার পাশাপাশি কোয়ালার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডরও হয়েছিলেন তিনি। ফলে দ্রুতই বিশ্বে পরিচিতি পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

ক্রিকেট মাঠের মতো ব্যবসার মাঠেও বাজিমাত করেছেন স্মিথ। গত চার বছরে প্রায় ২ লাখ গ্রাহক পেয়েছে কোয়ালা। এই সময়কালে কোয়ালার মূল্য বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫০ মিলিয়ন ডলারে। যেখানে স্মিথের ভাগ ১২.১৮ ডলার বা ১২১ মিলিয়ন ডলার যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১০২২ কোটি টাকারও বেশি।। অর্থাৎ ১ লাখ ডলার বিনিয়োগ করে প্রায় ১২০ গুণ লাভ করেছেন এই অজি তারকা।

কোয়ালায় স্মিথের মোট সম্পদের মূল্য ৩১ মিলিয়ন ডলার। গত এক বছরে তার আয় এসেছে ৫ মিলিয়ন ডলার। অথচ, ২০১৮ সালের মার্চ মাসে কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিংয়ের অভিযোগে দেড় বছর ধরে ক্রিকেটের বাইরে ছিলেন।

বিশ্বকাপের মতো বড় মঞ্চ দিয়ে আবার হলুদ জার্সিতে ফিরেছেন তিনি। সাদা পোশাকেও ফিরেছেন অ্যাশেজের মতো মর্যাদার সিরিজ দিয়ে। যেখানে তার প্রত্যাবর্তনটাও হয়েছে রাজকীয়! এজবাস্টন টেস্টের প্রথম দুই ইনিংসেই করেছেন সেঞ্চুরি।

মন্তব্য করুন

আরো সংবাদ