ফটো গ্যালারি

ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিলে সাধারন সম্পাদক পদে মশিউর রহমান রনি এগিয়ে !

ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিলে সাধারন সম্পাদক পদে মশিউর রহমান রনি এগিয়ে ! \

এওয়ান নিউজ: দীর্ঘ ২৭ বছর পর কাউন্সিলরদের সরাসরি ভোটে বিএনপির ভ্যানগার্ড খ্যাত ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিল আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর। এদিন ১১৭ সাংগঠনিক ইউনিটের ৫৮৫ জন ভোটার ভোট দিয়ে নির্বাচন করবেন ছাত্রদলের আগামীর নেতৃত্ব। ইতোমধ্যেই প্রধান দুটি পদে ২৭ জনকে চূড়ান্ত প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি। এর মধ্যে সভাপতি পদে ৮ জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ১৯ জন বৈধ প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। প্রার্থীরা প্রচারণাও চালাচ্ছেন জোরেশোরে। তৃণমূলের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করার। অবশেষে সেই মূল্যায়নের চাবিকাঠি এবার তৃণমূলের হাতেই দিল বিএনপি।

ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচন করতে পারবেন তাই খুশি তৃণমূল নেতারাও। কাউন্সিলরদের দুইজন নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি সাহেদ আহাম্মেদ ও সাধারন সম্পাদক মমিনুর রহমান বাবু বলেন, দীর্ঘদিন পর কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠনের উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই। আশাকরি এ কাউন্সিলের মাধ্যমে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামে থাকা ত্যাগী নেতৃত্ব বাছাই করতে সমর্থ হব। যারা খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনকে আরও শক্তিশালী ও বেগবান করে তুলবে।

সাধারন সম্পাদক পদের লড়াইয়ে যারা এগিয়ে আছেন তাদের একজন শেখ মো.মশিউর রহমান রনি। শুরুতে তার প্রার্থীতা নিয়ে নানা গুঞ্জন থাকলেও পরবর্তীতে মশিউর রহমান রনিই তৃণমূল ছাত্রনেতাদের কাছে আলোচনা কেন্দ্রবিন্দুতে। কারন তিনিই একমাত্র এই প্রথম জেলা ছাত্রদলের সভাপতি থেকে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক প্রার্থী। জানা যায়, সাধারন সম্পাদক প্রার্থীদের মধ্যে বিগত আন্দোলন সংগ্রামে মশিউর রহমান রনিই সবচেয়ে বেশি কারা নির্যাতনের স্বীকার ও গুম হয়েছিলেন।

তাই সাধারণ কর্মীদের মাঝে তার জনপ্রিয়তা রয়েছে। সাধারন সম্পাদক প্রার্থী শেখ মো.মশিউর রহমান রনি থাকায়, কাউন্সিলরদের হিসাব-নিকাশ অনেকটাই পাল্টে গেছে বলে মনে করেন তৃণমূলের কাউন্সিলররা। এছাড়াও সাধারন সম্পাদক দৌড়ে এগিয়ে আছেন তানজিল হাসান, ডালিয়া রহমান,মোস্তাফিজুর রহমান, সাইফ মাহমুদ জুয়েল,আমিনুর রহমান আমিন। তবে সব প্রার্থীই দলের প্রতি নিজের ত্যাগ ও নিবেদনকে কাউন্সিলরদের সামনে তুলে ধরতে মরিয়া।

সাধারন সম্পাদক প্রার্থী শেখ মো.মশিউর রহমান রনি বলেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জাতীয়তাবাদী আদর্শের উত্তরাধিকারী হিসেবে কাউন্সিলরদের কাছে ভোট চাইছি। আশা করি তারা আমাকে নিরাশ করবে না। আমি সারা দেশে কাউন্সিলরদের কাছে যাচ্ছি এবং আমি দলের জন্য যে ত্য্যাগ নির্যাতন, গুমের শিকার হয়েছি মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এসেও রাজপথে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন সংগ্রাম থেকে পিছ পা হয়নী। আমি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর কাউন্সিলরা আমাকে ভোট দিয়ে একটা বিপ্লব ঘটাবে।

এছাড়া সাধারণ সম্পাদক হওয়ার দৌড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক তানজিল হাসান,সাইফ মাহমুদ জুয়েল, আমিনুর রহমান ও একমাত্র নারী প্রার্থী ডালিয়া রহমান এগিয়ে আছেন।

মন্তব্য করুন

আরো সংবাদ