ফটো গ্যালারি

শারদীয় দূর্গোৎসব সফল করার লক্ষ্যে পূজা উদযাপন পরিষদের প্রতিনিধি সভা

শারদীয় দূর্গোৎসব সফল করার লক্ষ্যে পূজা উদযাপন পরিষদের প্রতিনিধি সভা \

বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ও বাংলাদেশের অন্যতম জাতীয় উৎসব শারদীয় দূর্গোৎসব যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে উদযাপনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিনিধি সভায় বক্তারা বলেন, স্বাধীনভাবে নিজ নিজ ধর্ম পালন ও চর্চা করা প্রতিটি নাগরিকের সাংবাধানিক স্বীকৃত অধিকার। কিন্তু প্রতি বছর শারদীয় দূর্গোৎসব এলেই একটি মহল প্রতিমা ভাংচুরের মাধ্যমে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের হৃদয়ে আঘাত কের। এ বছরও দেশের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিমা ভাংচুর চলছে। বক্তারা বলেন, প্রতিমা ভাংচুর এর মাধ্যমে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়া স্থায়ীভাবে বন্ধ করার জন্য আইনের কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে এবং দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

বক্তারা শারদীয় দূর্গোৎসবের সময়ে দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা তারিখ ঘোষনার বিষয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, দূর্গোৎসবকালীন ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন করে পুণঃ তারিখ ঘোষনা করতে হবে। বক্তারা শারদীয় দূর্গোৎসবে ৪ দিনের সরকারি ছুটি ঘোষণা দাবী জানান।

১৩ সেপ্টেম্বর শুক্রবার চৌহাট্টা শ্রী শ্রী ভোলাগিরী আশ্রমে সকাল সাড়ে ১০টায় বার্ষিক প্রতিনিধি সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সুব্রত দেব।
জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট রঞ্জন ঘোষ ও মহানগর সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্তের যৌথ সঞ্চালনায় প্রতিনিধি সভার শুরুতেই শোক প্রস্তাব পাঠ করা হয়। বার্ষিক প্রতিনিধি সভায় সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার উপদেষ্টামন্ডলী কার্য নির্বাহী কমিটি, বিভিন্ন উপজেলা কমিটির নেতৃবৃন্দ, মহানগর সার্বজনীন ও পারিবারিক পূজার প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট শিক্ষাবীদ পূজা পরিষদ সিলেট জেলা শাখার প্রধান উপদেষ্টা বিরাজ মাধব চক্রবর্তী, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি তাপস দাস পুরকায়স্থ, কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলা, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক বিজিত কুমার দে, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা এড. প্রদীপ কুমার ভট্টাচার্য্য, পূজা পরিষদ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য অধ্যাপক রজত কান্তি ভট্টাচার্য্য, মহানগর উপদেষ্টা বিনীত কুমার চক্রবর্তী, জেলা উপদেষ্টা এড. প্রশান্তি কুমার পাল, শাবিপ্রবির ইংরেজী বিভাগের প্রধান ড. হিমাদ্রী শেখর রায়, জেলা উপদেষ্টা প্রকৌশলী মনোজ কুমার দেব রায়, মহানগর পূজা পরিষদের সহ সভাপতি প্রদীপ কুমার দেব, জেলা সহ সভাপতি সুবল পাল, মহানগর সহ সভাপতি নির্মল সিনহা, জেলা সহ সভাপতি অধ্যক্ষ ভাস্কর রঞ্জন দাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা পান্না লাল রায়, এড. বিজয় কৃষ্ণ বিশ্বাস, মহানগর যুগ্ম সম্পাদক চন্দন দাস, এড. দেবব্রত চৌধুরী লিটন, মনোজ কান্তি দত্ত মুন্না, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক শৈলেন কর, মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক নিখিল দে, সদর উপজেলা সভাপতি নিলেন্দু ভূষণ দে অনুপ, ছাত্র ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় সদস্য রকি দেব, জেলা নেতা অনিক লাল দে, এড. বিপ্রদাস ভট্টাচার্য্য, শংকর দাস শংকু, মহানগর শাখার কোষাধ্যক্ষ মদন মোহন কর্মকার, জেলা মহিলা সম্পাদিকা মাধুরী গুণ, সহ ধর্মীয় সম্পাদক মিঠু মোহন দেব, সহ আইন সম্পাদক এড. নিতু কান্ত দাস, মহানগর নির্বাহী সদস্য বাবুল দেব, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা সভাপতি মন মোহন দেবনাথ, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা সম্পাদক বিজন দেবনাথ, বিশ্বনাথ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত কুমার দাস, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ বিশ্বাস, জৈন্তাপুর উপজেলা সভাপতি নৃপেন্দ্র কুমার দাস, সাধারণ সম্পাদক দুলাল দাস, কানাইঘাট সভাপতি চিত্রশিল্পী ভানুলাল দাস, সাধারণ সম্পাদক ভজন লাল দাস, জকিগঞ্জ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় বিশ্বাস, গোলাপগঞ্জ উপজেলা সভাপতি নীরেন্দ্র দেব নাথ, সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক রজত কান্তি দাস, ওসমানীনগর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. নিরঞ্জন সূত্রধর, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক চয়ন দে, চা শ্রমিকের পক্ষে রান্টু রঞ্জন সিংহ, মনিপুর পূজা কমিটির ধরনী সিংহ প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

আরো সংবাদ